• শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ০৫:১৫ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার! বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারাদেশে যুবলীগের বিক্ষোভ দেশজুড়ে দৃষ্টিনন্দন ইসলামি ভাস্কর্য রামগঞ্জে দল্টা বাঙ্গালী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন

যে কোন সময় বরখাস্ত হতে পারেন স্বাস্থ্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২০

সরকারের দুই মন্ত্রীর ব্যর্থতায় করোনা পরিস্থিতি এখন মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। স্বাস্থ্য ও বাণিজ্য খাতে এখন ছ্যাড়াব্যাড়া অবস্থা। সব মহলে এখন উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার সৃষ্টি হয়েছে। এই মন্ত্রীদের নিয়ে সমালোচনা ও বিতর্কের শেষ নেই। অভিযোগ উঠেছে, সারা দেশের সিভিল সার্জন ও সিনিয়র চিকিৎসকদের পরামর্শ নিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। চীনের উহানে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর যথেষ্ট সময় হাতে পেয়েও সেই সময়কে কাজে লাগাতে ব্যর্থ হয়েছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। একইভাবে ব্যর্থ বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। সরকারের সাধারণ ছুটি ঘোষণার পর তিনি গার্মেন্ট মালিকদের নিয়ে বৈঠক করলেও সঠিক কোনো গাইডলাইন বা নির্দেশনা দিতে পারেননি।

ফলে গণহারে গার্মেন্ট কারখানা খুলে রাখা, সে কারখানা বন্ধ করে শ্রমিকদের গ্রামে পাঠানো আবার মালিকপক্ষ কারখানা খুলে দিয়ে শ্রমিকদের ঢাকায় নিয়ে এসে পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তোলেন। গার্মেন্ট শ্রমিকদের মাধ্যমে করোনাভাইরাস গ্রামেগঞ্জে দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে বলে বিভিন্ন মহল থেকে বক্তব্য আসে। এসব কারণে বাণিজ্যমন্ত্রীকে তিরস্কারও করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হকসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সমন্বয় করতে না পারায় গার্মেন্ট কারখানাগুলোয় চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। দুই মন্ত্রীর এমন ব্যর্থতার কারণেই দেশে করোনাভাইরাসের ব্যাপক বিস্তার ঘটেছে- এমনটাই মনে করছেন সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্টরা। তাদের এ ব্যর্থতা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও চলছে তুমুল সমালোচনা। করোনাভাইরাসের তৃতীয় স্তরে রয়েছে বাংলাদেশ। সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে মানুষ থেকে মানুষে।

ইতোমধ্যে বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদফতর সারা দেশকে ঝুঁকিপূর্ণ বলে ঘোষণাও দিয়েছে। এখন সংক্রমণের সংখ্যা যেমন প্রতিদিন বাড়ছে, তেমন মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। এ অবস্থায় বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সামনের দিনগুলো কঠিন হয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের জন্য তাই পরিস্থিতি সামাল দিতে এখনই জরুরি ভিত্তিতে স্বাস্থ্য খাতের সাবেক মন্ত্রী, উপদেষ্টা, সচিব থেকে শুরু করে বিশেষজ্ঞ, চিকিৎসক ও বিএমএ নেতাসহ যারা কাজ করেছেন এবং এখনো করছেন তাদের নিয়ে ১৫ থেকে ২১ সদস্যবিশিষ্ট একটি ‘অ্যাকশন কমিটি’ গঠন করতে হবে। তাহলে পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সহজ হবে। একটা সমন্বয়ও তৈরি হবে। অন্যথায় করোনাভাইরাসের কারণে দেশব্যাপী মহাবিপর্যয় আসতে পারে।

যা সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়বে। একইভাবে সিদ্ধান্তে আসা প্রয়োজন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির ব্যাপারে। তার দূরদর্শিতার অভাবে এবং গার্মেন্ট মালিকদের সঙ্গে সমন্বয়হীনতার কারণে গার্মেন্ট কারখানাগুলো খোলা রাখা-না রাখা নিয়ে যে বিভ্রান্তি ও শ্রমিকদের গ্রামে যাওয়া আবার ফিরে আসায় করোনা সংকটকে আরও গভীর করে তুলেছে। বাণিজ্যমন্ত্রী বাজার পরিস্থিতি, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে না পারাসহ কোনো খাতেই সাফল্য দেখাতে পারেননি। সার্বিক পরিস্থিতিতে বাণিজ্যমন্ত্রী এবং তার মন্ত্রণালয় এখন তীব্র সমালোচিত হচ্ছে। অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন বাণিজ্যমন্ত্রীর কর্মকাণ্ড ও যোগ্যতা নিয়ে।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বেহালদশা। এ মন্ত্রণালয়ের নানান কেনাকাটায় মিঠু সিন্ডিকেটসহ বিভিন্ন সিন্ডিকেটের কারণে মন্ত্রীরা বিভিন্ন সময়ে সমালোচিত হয়েছেন, বিতর্কিত হয়েছেন। স্বাস্থ্য খাতে ন্যূনতম শৃঙ্খলা আনতে পারেননি কোনো মন্ত্রীই। সর্বশেষ বর্তমান মন্ত্রী জাহিদ মালেকও মন্ত্রণালয়ে কোনো শৃঙ্খলা আনতে পারেননি। টানা সাত বছর ধরে তিনি এ মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রথমে ছিলেন প্রতিমন্ত্রী। তারপর এখন পূর্ণমন্ত্রী। এই দীর্ঘ সময়ে তিনি কাজের কাজ কিছু করতে না পারলেও নানান ইস্যুতে একাধিকবার সমালোচিত হয়েছেন। গত বছর ডেঙ্গু পরিস্থিতি যখন মারাত্মক আকার ধারণ করে তখন মন্ত্রী চলে গিয়েছিলেন সিঙ্গাপুরে। এ নিয়েও সমালোচিত হয়েছিলেন সব মহলে। এবার করোনা পরিস্থিতিতে চিকিৎসকদের পিপিই সরবরাহ নিয়েও তীব্র সমালোচনার মুখে জাহিদ মালেক। বিশেষ করে এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহ করা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। প্রশ্ন উঠেছে মাস্ক সরবরাহকারী সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদের সঙ্গে মন্ত্রীর পারিবারিক সম্পর্ক নিয়ে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

মন্ত্রী প্রতিদিন পিপিই নিয়ে যেসব বক্তব্য দিচ্ছেন বিশেষ করে পিপিই দেওয়া হচ্ছে বললেও বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে নারায়ণগঞ্জের একজন চিকিৎসক জানিয়েছেন, তারা মাস্ক পাচ্ছেন না। যেসব পিপিই ও মাস্ক সরবরাহ করা হয়েছে সেগুলো খুবই নিম্নমানের; যা ব্যবহার করে কভিড-১৯ রোগীদের কাছাকাছি গিয়ে চিকিৎসা করা কঠিন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকরা অভিযোগ করেছেন, তারা ব্যক্তিগতভাবে মাস্ক ও পিপিই সংগ্রহ করেছেন। শুধু তাই নয়, করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য যেসব চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীকে ডেডিকেটেড করা হয়েছে তাদেরও অভিযোগের শেষ নেই। তাদের যাতায়াত, থাকা ও খাওয়ার বিষয়টি এখন পর্যন্ত অনিশ্চিত। তাদের প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/