• বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ০৫:৪০ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার! বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারাদেশে যুবলীগের বিক্ষোভ দেশজুড়ে দৃষ্টিনন্দন ইসলামি ভাস্কর্য রামগঞ্জে দল্টা বাঙ্গালী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন

মির্জা ফখরুলের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রীর!

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৮ নভেম্বর, ২০১৮

গতকাল (বুধবার) গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের নেতৃবৃন্দ আলোচনা করেন। ঐক্যফ্রন্টের 11 নেতাকর্মীর মধ্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলও উপস্থিত ছিলেন। দুই পক্ষের মধ্যে 11:15 থেকে 2:15 পর্যন্ত তিন ঘন্টা দীর্ঘ সংলাপ চলছে। সে সময় বিএনপির মহাসচিবের স্বাস্থ্য সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন কিছুটা অসুস্থ বোধ করেন।

সংলাপের সময় প্রধানমন্ত্রী বিএনপির মহাসচিবকে জিজ্ঞেস করলেন, “আপনাকে এমন লাগছে কেন?” ফখরুল বলেন, “আমার শারীরিক অবস্থা খুব ভাল না। আমি হৃদরোগের জটিলতা ভোগ করছি।” প্রধানমন্ত্রী আন্তরিকভাবে জিজ্ঞাসা করলেন, “কোথায় চিকিৎসা করাচ্ছেন? চিকিৎসা কেমন চলছে?” এ প্রশ্নের জবাবে ফখরুল তার চিকিৎসার বিষয়ে জানালেন। তার প্রতিক্রিয়া শোনার পর, প্রধানমন্ত্রী বলেন, “না, আপনার চিকিৎসা তো ঠিকমতো হচ্ছে না।আপনার চিকিৎসা ঠিকমতো হওয়া দরকার। চিন্তা করবেন না, আমি এই বিষয়টি দেখব।”

গতকাল (বুধবার), প্রধানমন্ত্রী খুব ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন। ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সংলাপ ২:15 টায় শেষ হয়েছে। এছাড়াও 14 দলীয় জোটের সঙ্গে আরেকটি বৈঠক হয়েছিল। এবং তার নিয়মিত অফিসিয়াল কাজ সম্পর্কে বলার প্রয়োজন নেই। তবুও প্রধানমন্ত্রী মির্জা ফখরুলের স্বাস্থ্য সম্পর্কে তদন্ত করতে ভুলে যাননি। গতকাল প্রধানমন্ত্রী একটি ব্যক্তিগত কর্মকর্তা ড। তিনি মির্জা ফখরুলের স্বাস্থ্য সমস্যা সম্পর্কিত সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহের নির্দেশ দেন।

প্রধানমন্ত্রী এমন রাজনৈতিক দলটির মহাসচিবের স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছিলেন, যা সরাসরি তাকে হত্যা করার ষড়যন্ত্রে জড়িত ছিল। তিনি মির্জা ফখরুলের ওপর তার উদ্বেগ প্রকাশ করেন, যার দলের 19 জন নেতা মৃত্যুদন্ড পেয়েছেন এবং ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারিক জিয়াসহ 18 জনকে ২1 আগস্ট গ্রেনেড হামলায় জড়িত থাকার জন্য ২4 আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও কর্মীকে হত্যা করেছে।

বিএনপির মহাসচিবের স্বাস্থ্য নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্বেগ নিয়ে অনেকে অবাক হয়েছেন। কিন্তু যারা প্রধানমন্ত্রীকে ভালভাবে জানে তারা সবাই অবাক হচ্ছেনা। কারণ বঙ্গবন্ধুর মেয়ে শেখ হাসিনা এইরকম। তিনি এমনকি তার চরম শত্রুদের জন্য আতিথেয়তা প্রদর্শন করতে ভুলবেন না। তিনি এমনকি তার শত্রুদের সমর্থন করতে দ্বিধাগ্রস্ত না। তার এই ধরনের অসঙ্গতিপূর্ণ প্রেম এবং ক্রিয়াকলাপের কারণে, আজ তিনি সমগ্র দেশের নির্বিচার নেতা হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/