• বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১১:২২ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার! বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারাদেশে যুবলীগের বিক্ষোভ দেশজুড়ে দৃষ্টিনন্দন ইসলামি ভাস্কর্য রামগঞ্জে দল্টা বাঙ্গালী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন

নড়াইলবাসীর অন্যরকম সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা!!

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২০

উজ্জ্বল রায় (নিজস্ব প্রতিবেদক) নড়াইলঃ   কৃষকের হাতে এক প্যাকেট খাবার দিয়ে আবার মোটরসাইকেলে চলতে শুরু করলেন। এ যেন এক অন্যরকম এমপি। তিনি নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। মোটরসাইকেলে এক গ্রাম থেকে আরেক গ্রামে ছুটে চলছেন। করোনা পরিস্থিতিতে নিচ্ছেন মানুষের খোঁজখবর তিনি। হাতে হাতে তুলে দিচ্ছেন ব্যক্তিগত ত্রাণসামগ্রী। সংসদ সদস্য হলেও আশপাশে নেই পুলিশ। নেই কোনো গাড়িবহর কিংবা হুইসেল। উজ্জ্বল রায় (নিজস্ব প্রতিবেদক) নড়াইল জানান, অন্য এমপিদের মতো কোটি কোটি টাকার দামি গাড়িতে চড়েন না এই এমপি। গাড়ির গ্লাস খুলে জনতাকে ডাকেন না। পুলিশ কিংবা নিরাপত্তারক্ষী নেই তার। নিরাপত্তারক্ষী থাকলে হয়তো গাড়ি থামিয়ে গ্লাস খুলে জনতাকে ডাকতেন, ‘ওই চাচা, আপনাকে এমপি মহোদয় ডাকেন।’ন্তু মোটরসাইকেল থামিয়ে হাতে খাবারের প্যাকেট দিয়ে চলে যাওয়া এমপির দিকে অনেকক্ষণ তাকিয়ে রইলেন ওই কৃষক। বাড়িতে গিয়ে হয়তো ওই কৃষক এতক্ষণে স্ত্রী-সন্তানদের উৎফুল্ল মনে বলছেন; জানিস আজ কার সাথে দেখা হয়েছিল? এই খাবারের প্যাকেট কে দিয়েছে?পরিবারের সদস্যদের জানার আগ্রহ বেড়ে যায়। বার বার জানতে চায় কে সেই লোক? সবশেষে নিজের আদরের সন্তানকে বুকে জড়িয়ে ওই কৃষক বাবা বললেন, আমাগো এমপি মাশরাফি দিয়েছে বাবা। বাড়ি আসার পথে হঠাৎ মোটরসাইকেল থামিয়ে আমাকে সালাম দিল। তোদের সবার কথা জানতে চেয়েছে। এই খাবার ও টাকা দিয়ে গেছেন। করোনা প্রতিরোধে সবাইকে সাবধানে থাকতে বলেছে মাশরাফি। শুনে পরিবারের সবার মুখে হাসি। স্ত্রীর মনে প্রশ্ন, এমপি কি এমনও হয়! এমপি এত সাধারণ? মোটরসাইকেলে চলে! এমন নানা প্রশ্নের মাঝে মনে স্বস্তি নিয়ে জনতার এমপির জন্য মনভরে দোয়া করে ওই কৃষকের পরিবার। অপেক্ষায় থাকে জনতার এমপিকে সুখে-দুঃখে পাশে পাওয়ার। এ ঘটনার পরদিন নড়াইল থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে কালনাঘাট পর্যন্ত যত কৃষক, ভ্যানচালক পেয়েছেন মোটরসাইকেল থামিয়ে সালাম দিয়ে সবাইকে সহযোগিতা করেছেন এমপি মাশরাফি।নিম্নআয়ের এমন অসংখ্য মানুষের বাড়ির সামনে মোটরসাইকেল থামিয়ে কাউকে খাবার, কাউকে টাকা দিয়ে গেছেন তিনি। এসব পরিবারের আত্মসম্মানের কথা ভেবে ত্রাণ কিংবা সহযোগিতা দেয়ার ছবি তুলতে নিষেধ করেছেন এমপি। এসব মানুষ কখনও মাশরাফির এসব সহযোগিতার কথা ভুলবে না। মনভরে মাশরাফির জন্য দোয়া করবে; যুগ যুগ বেঁচে থাকার।উজ্জ্বল রায় (নিজস্ব প্রতিবেদক) নড়াইল।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/