• বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১১:৫৮ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার! বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারাদেশে যুবলীগের বিক্ষোভ দেশজুড়ে দৃষ্টিনন্দন ইসলামি ভাস্কর্য রামগঞ্জে দল্টা বাঙ্গালী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন

করোনায় মারা যাওয়া নেতার জানাযায় হাজারও মানুষ

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১০ এপ্রিল, ২০২০

করোনা উপস্বর্গ নিয়ে মৃত্যুবরণ করা বরগুনার আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জি এম দেলোয়ারের বাড়ি লগডাউনের নির্দেশ থাকলেও সেখানে কার্যত কোনো লকডাউন ছিলো না। লগডাউনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেও মৃতের জানাযায় অংশ নিয়েছেন কয়েক হাজার এলাকাবাসী। মৃতের বাড়িতে মৃতদেহ দেখতে এসেছেন শতশত স্বজনসহ সহস্রাধিক স্থানীয় এলাকাবাসী। অংশগ্রহণ করেছেন জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের অনেক রাজনৈতিক নেতাও। এ বিষয়ে লগডাউন কার্য্যকর করতে পুরোপুরি ব্যার্থ হয়েছে আমতলী উপজেলা প্রশাসন এমন অভিযোগ স্থানীয় সচেতন মহলের।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একজন এলাকাবাসী বলেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করা জিএম দেলোয়ার আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এবং মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার। তিনি স্থানীয়ভাবে অত্যন্ত জনপ্রিয় মানুষ। এসব জেনে শুনেই বরগুনার জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ আওয়ামী লীগ নেতা জিএম দেলোয়ারের মৃত্যুর সাথে সাথে তার নমুনা প্রতিবেদন না আসা পর্যন্ত তাঁর বাড়ি লকডাউন করে দেয়ার নির্দেশ দেন। 

অথচ সেই লকডাউন উপেক্ষা করে আওয়ামী লীগ নেতা জিএম দেলোয়ারের মৃতদেহ দেখতে সেখানে ভিড় করে শতশত স্বজনসহ সহস্র মানুষ। এমনকি কয়েক হাজার মানুষের উপস্থিতিতে সেখানে অনুষ্ঠিত হয় মরহুমের নামাজে জানযা। এতে মৃত ব্যক্তির দেহ ছাড়াই তার নিকট স্বজনদের মাধ্যমেও জানাযায় অংশগ্রহণকারী জনতার মাঝে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে। আর এর মধ্য দিয়ে পুরো আমতলী উপজেলা তো বটেই, পুরো বরগুনা জেলাই এখন ঝৃঁকির মুখে।

তাঁর মৃত্যুর বিষয়ে, বরগুনার সিভিল সার্জন ডা. হুমায়ূন শাহিন খান জানান, ‘জিএম দেলোয়ার সাহেব পটুয়াখালী হসপিটালে ডাক্তার দেখিয়েছিলেন। সেখান থেকে তার নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকার মহাখালীর  ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপিং সাইন্স অ্যান্ড হেলথ ইনিশিয়েটিভ-এ পাঠানো হয়েছে। আমরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে তার টেস্ট রিপোর্টটি পাঠানোর জন্য কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেছিলাম। ইতোমধ্যে সে রিপোর্ট আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। তিনি করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন বলে রিপোর্টে পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনিরা পারভিন বলেন, আমরা চেষ্টা করেছি লগডাউন কায্যকর করতে। তারপরেও বেশ কিছু লোকজন হয়েছে। সীমীত আকারে জানাযা হয়েছে। এখন আমরা পুরো উপজেলা লকডাউন করে দিয়েছি। 

এ বিষয়ে নৌবাহিনীর কমান্ডার যবায়ের বলেন, সেখানে যাতে লোকসমাগম না হয় সে বিষয়ে আমাদের পরক্ষ থেকে, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে, এমনকি আমতলী থানার পক্ষ থেকেও মাইকিং করা হয়েছে। কিন্তু তারপরেও সাধারণ জনগন তা শোনেনি।

তিনি আরো বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত সর্বস্তরের জনগণ সচেতন না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত এ অভিযান সফল করা সম্ভব হবে না। এ বিষয়ে কমান্ডার যুবায়ের আরো বলেন, বিষয়টি অনুধাবন করে তিনি বরগুনার জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপারের সাথে কথা বলেছেন যাতে পুরোপুরি আমতলী উপজেলাকে লগডাউন করা হয়। 

এ বিষয়ে বরগুনার জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, আমাদের অফিসাররা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। তারা মাইকিং করেছে। কিন্তু তাদের বাঁধার মুখেও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ অনেকেই সেখানে উপস্থিত হয়েছেন। এ বিষয়ে এককভাবে উপজেলা প্রশাসনকে দায়ী করা যাবে না। কারণ জনগণ সচেতন না হলে শুধু প্রশাসনের পক্ষে অনেক কিছুই করা সম্ভব হয়ে ওঠে না।  

প্রসঙ্গত, গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় আমতলী সদর ইউনিয়নের লোচা গ্রামের নিজ বাড়িতে করোনা উপস্বর্গ নিয়ে ৭২ বছর বয়সে মৃত্যু বরণ করেন জিএম দেলোয়ার। এর আগে গত আট- দশ দিন ধরে তিনি জ্বরসহ করোনা উপস্বর্গে ভুগছিলেন। 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/