• মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০, ১১:১৬ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
হাঁটু গেড়ে মাথা নত করে ক্ষমা চাইল যুক্তরাষ্ট্রের পুলিশ সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম করোনায় আক্রান্ত! কিরণ একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। মানুষ করোনার চেয়ে শক্তিশালী-শাহজাদা মহিউদ্দিন নোয়াখালীতে রোগের যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ বৃদ্ধের আত্মহত্যা চরহাজারীতে পল্লী চিকিৎসকদেরকে সুরক্ষা সরঞ্জাম দিলেন আমেরিকা প্রবাসী পিন্টু! নগদ অর্থ ও ঈদ উপহার সামগ্রী নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে ‘ছাত্রলীগ নেতা ও তার পরিবার’ নগদ অর্থ ও ঈদ উপহার সামগ্রী নিয়ে অসহায় মানুষের পাশে ‘ছাত্রলীগ নেতা ও তার পরিবার’ করোনা দুর্যোগে বিপন্ন মানুষের জন্য কাজ করছে। ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগ নেতা এয়াকুব সায়িম ইমন। ঈদের পরের দিন বাজারে আসছে এ এইচ তুর্যের “জ্বলে পুঁড়ে অঙ্গার হইলাম”

করোনায় কক্সবাজার সৈকত ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা ।প্রয়োজনে গুলি চলবে

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৮ মার্চ, ২০২০

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে কক্সবাজারে পর্যটক আসার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে জেলা প্রশাসন। বুধবার (১৮ মার্চ) বিকেলে কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতসহ আশপাশের পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক (ডিসি) কামাল হোসেন।

তিনি বলেন, কক্সবাজারে দেশি-বিদেশি অনেক পর্যটক আসেন। ফলে কক্সবাজার করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে রয়েছে। করোনা ঝুঁকি এড়াতে কক্সবাজারে পর্যটকদের না আসার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। একই সঙ্গে সমুদ্র সৈকতে জনসমাগম রোধে পর্যটকদের সৈকতে না নামতে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সৈকতের বিচকর্মী ও ট্যুরিস্ট পুলিশ সমুদ্র সৈকত থেকে পর্যটকদের সরিয়ে নিচ্ছেন।

কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার মো. ফখরুল ইসলাম বলেন, ইতোমধ্যে সৈকতে বেড়াতে আসা পর্যটকদের বিষয়টি জানিয়ে তাদের সরিয়ে এনেছি। পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বলবৎ থাকবে। জনস্বার্থে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

করোনা : সচিবালয়ে প্রবেশে কড়াকড়ি, বাড়তি সতর্কতা

দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ায় প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্র সচিবালয়ে দর্শনার্থী প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। একান্ত অপরিহার্য না হলে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোতে পাস ইস্যু না করার পরামর্শ দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এছাড়া সচিবালয়ে প্রবেশের আগে দর্শনার্থীদের শরীরের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। কারও তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রির বেশি হলে তাকে সচিবালয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।

সচিবালয় ঘুরে দেখা গেছে, এখানে কর্মরত মন্ত্রী, সচিব থেকে শুরু করে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অনেকেই মাস্ক ব্যবহার করছেন। অফিসে এসেই বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করছেন। হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধুয়ে জীবণুমুক্ত রাখছেন।

সম্প্রতি ‘বাংলাদেশ সচিবালয় দৈনিক দর্শনার্থী পাস ইস্যু সংক্রান্ত’ একটি চিঠি সচিবালয়ের সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের কাছে পাঠানো হয়।

jagonews24

সেখানে বলা হয়, বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে সর্তকতা হিসেবে এবং সম্ভাব্য স্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়াতে একান্ত অপরিহার্য না হলে সচিবালয় দর্শনার্থী পাস ইস্যু না করার জন্য মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সকল কর্মকর্তাকে নির্দেশ প্রদানের জন্য অনুরোধ করা হলো।

বুধবার (১৮ মার্চ) সচিবালয়ের এক ও দুই নম্বর গেটের মাঝখানে দর্শনার্থী প্রবেশের কক্ষটিতে গিয়ে দেখা গেছে, সেখানে টেবিল পেতে তাপমাত্রা মাপার দুটি যন্ত্র নিয়ে বসে আছেন সচিবালয় ক্লিনিকের দু’জন নার্স।

তারা জানিয়েছেন, একজন ডাক্তারের নেতৃত্বে চারজনের একটি টিম এখানে কাজ করছে। তাদের সঙ্গে একজন স্যানিটারি ইন্সপেক্টরও রয়েছেন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একজন সদস্য তাদের সহযোগিতা করছেন।

গত রোববার থেকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত এটা চলবে বলে দায়িত্বরত নার্সরা জানিয়েছেন।

তারা আরও জানান, কারও শরীরের তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি হলে তাকে সচিবালয়ে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। তবে এখন পর্যন্ত এই তাপমাত্রার কাউকে পাওয়া যায়নি বলে জানান তারা।

সচিবালয়ে দায়িত্বপালনকারী নিরাপত্তা বাহিনীর এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘করোনা আতঙ্কে দর্শনার্থীরাই এখন কম আসছেন। এছাড়া মন্ত্রণালয়গুলোকে পাস ইস্যু করতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে।’

jagonews24

তিনি আরও জানান, অন্যান্য সময়ে দৈনিক দর্শনার্থীদের সংখ্যা গড়ে এক হাজার ৫০০ থাকলেও এখন তা এক হাজারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকছে। গত ৩ মার্চ এক হাজার ৫২৫ জন দর্শনার্থী সচিবালয়ে প্রবেশ করেছে। গত ১৫ তারিখে দর্শনার্থী ছিল এক হাজার ১৭৯ জন। আজকে দর্শনার্থী এক হাজারও হবে না।

সচিবালয়ের যুগ্মসচিব, অতিরিক্ত সচিব, সচিব ও সিনিয়র সচিবরা প্রতিদিন ৫টি করে পাস ইস্যু করতে পারেন। এছাড়া মন্ত্রী, উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীর একান্ত সচিবরাও পাস ইস্যু করতে পারেন।

সচিবালয়ে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে গিয়ে দেখা গেছে, খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার মাস্ক পরে অফিসে এসেছেন। তথ্য মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মচারীকে জীবাণুনাশক দিয়ে বিভিন্ন কক্ষের দরজার হ্যান্ডেল পরিষ্কার করতে দেখা গেছে।

গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের উহানে শনাক্ত হয়েছিল প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত এ ভাইরাসে ২ লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। মারা গেছে ৮ হাজারের বেশি মানুষ। বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত একজনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছে ১৪ জন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/