• বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৯:৩৭ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন কোম্পানীগঞ্জে ঋণের দায়ে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা! ডুবাইয়ে ইস্কান্দার মির্জা শামীমকে সম্মাননা প্রদান বিকাশ প্রতারকের সঙ্গে প্রেম করে টাকা উদ্ধার করলেন কলেজছাত্রী কোম্পানীগঞ্জে অটোরিকশা চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত! চিফ হুইপের নামে ভুয়া ফেসবুক আইডি খুলে প্রতারণা, গ্রেফতারকৃত জাহিদ ৩ দিনের রিমান্ডে

নিজ দেশের যুবাদের আচরণের কঠোর শাস্তি চান কপিল, আজহার

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

যুব বিশ্বকাপের ফাইনালে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সঙ্গে ভারতের ক্রিকেটারদের বাদানুবাদ ও হাতাহাতির পরিস্থিতিতে চরম হতাশা জানিয়েছেন কপিল দেব ও মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন। ভারতের কিংবদন্তি সাবেক এই দুই ক্রিকেটার নিজ দেশের যুব ক্রিকেটারদের আচরণের কঠোর শাস্তি চেয়েছেন।

গত রবিবার বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতকে ডি/এল মেথডে ৩ উইকেটে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। খেলা শেষে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের উদযাপন ঘিরে তৈরি হয় উত্তপ্ত পরিস্থিতি। বাদানুবাদ ও হাতাহাতিতে লিপ্ত হন দুদলের ক্রিকেটাররা।

ভারতের গণমাধ্যম দ্য হিন্দুকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ভারতের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক কপিল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) কাছে চেয়েছেন কঠোর ব্যবস্থা, ‘আমি দেখতে চাই যে বোর্ড কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে উদাহরণ তৈরি করবে। ক্রিকেট খেলাটা প্রতিপক্ষকে অপমানের জায়গা না। আমি নিশ্চিত এদের শিক্ষা দেওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে বিসিসিআইয়ের।’

মাঠের খেলায় আগ্রাসী মনোভাব নিয়ে নামায় কোনো আপত্তি দেখছেন না কপিল। তবে সেই আগ্রাসন সীমা ছাড়িয়ে যাওয়াতেই তার যত আপত্তি, ‘আগ্রাসনকে আমি স্বাগত জানাই। এখানে ভুল কিছু নাই। কিন্তু আগ্রাসনে নিয়ন্ত্রণ থাকতে হবে। ভদ্রতার সীমা ছাড়ানো যাবে না। ক্রিকেট মাঠে যেটা হয়েছে, সেটা একেবারেই অপ্রত্যাশিত।’

একই মত ভারতের সফল অধিনায়কদের একজন আজহারউদ্দিনের। তার প্রশ্ন, ভারতের ক্রিকেটারদের কী শেখাচ্ছেন কোচ ও টিম ম্যানেজমেন্ট, ‘যুব দলের ক্রিকেটারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চাইব আমি। কিন্তু আমার জানতে হবে নিয়মটা কী আর সাপোর্ট স্টাফরা কী শিখিয়েছে। দেরি হওয়ার আগেই তা করতে হবে। খেলোয়াড়দের শৃঙ্খলা শিখতে হবে।’

মিড ডে পত্রিকাকে তিনি বলেন, খারাপ আচরণের কোনো অজুহাত হতে পারে না, ‘আপনি ব্যাটিং, বোলিং খারাপ করতে পারেন। এটা হয়। কিন্তু বাজে ব্যবহারের কোনো অজুহাত হয় না। তাদের আচরণ ছিল বিশ্রী।’

তবে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের আচরণ নিয়ে কোনো মন্তব্য নেই তার। আজহার চাইছেন কেবল নিজে দেশের ক্রিকেটারদের শৃঙ্খলা, ‘দেখেন বাংলাদেশেরটা তাদের সমস্যা, আমাদের সমস্যাটা আমাদের। আপনি দেখেছেন কী খারাপ ভাষা তারা ব্যবহার করেছে!’

এই ঘটনায় অবশ্য ব্যবস্থা নিয়েছে আইসিসি। বাংলাদেশের তিন ও ভারতের দুই ক্রিকেটারকে কয়েক ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/