• বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:৫৯ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন কোম্পানীগঞ্জে ঋণের দায়ে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা! ডুবাইয়ে ইস্কান্দার মির্জা শামীমকে সম্মাননা প্রদান বিকাশ প্রতারকের সঙ্গে প্রেম করে টাকা উদ্ধার করলেন কলেজছাত্রী কোম্পানীগঞ্জে অটোরিকশা চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত!

ওয়াজের নামে গালি-গালাজ করলে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: নদভী

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২০








নিজস্ব প্রতিবেদক



ইসমাঈল আযহার:

সাতকানিয়ার এমপি মাওলানা আবু রেজা বলেছেন, বাংলাদেশে ওয়ায়েজীন তিন প্রকার। এক প্রকার হল, আমাদের কওমী আলেমরা। যারা দারুল উলুম দেওবন্দের অনুসারী। তারা ওয়াজ করেন কোরআন হাদিস দিয়ে, মাসনবীর শের আশয়ার দিয়ে, তাসাউফ ও আক্বীদা নিয়ে। আরেক ধরনের ওয়াজীনরা ওয়াজের শুরুতে গালাগালি শুরু করে দেন। আরেক ধরণের ওয়াজীন আছে যারা দু’চার মিনিট ওয়াজ করে গালাগালি শুরু করে দেন। তিনি একটি ইসলামি সম্মেলনে বক্তব্য দিয়ে গিয়ে এসব কথা বলেন।



মাওলানা আবু রেজা বলেন, আমি এদের নাম নেব না। মুসলিমকে গালি দেওয়া হারাম (সব্বুর মুসলিমি হারামুন)। কিন্তু এরা তো সাধারণ মানুষকে গালি দিচ্ছে না। গালি দিচ্ছে আল্লামা আহমাদ শফী সাহেবকে, গালি দিচ্ছেন জুনায়িদ বাবুনগরী সাহেবকে,গালি দিচ্ছে হযরত আশরাফ আলী থানভী রহ.কে, গালি দিচ্ছে আকাবিরে দেওবন্দকে।



তিনি বলেন, যারা এধরনের গালিগালাজ করে তারা কীভাবে ওয়াজ করে! তাদের ওয়াজের কোনও ফায়দা হয় না। সঙ্গে সঙ্গে তিনি বলেন, এধরনের অপরাধের জন্য ডিজিটাল তথ্যপ্রযুত্তি আইনে মামলা হওয়ার দরকার। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।



আরেকটা কথা হল মেরাজুন নাবীর অস্তিত্ব আছে সিরাতুন নাবীর অস্তিত্ব নেই। সিরাতুন নাবী হল, আখলাকুর নাবী স., আকওয়ালুন নাবী স., আখলাকুন নাবী স., আমালুন নাবী স., একরারুন নাবী স., এগুলোর সমষ্টিগত হল সিরাতুন নাবী স.। আর মিলাদুন নাবী স. হল, নবীজির জন্মসংক্রান্ত যা কিছু আছে সেগুলো।



তিনি বলেন, অনেক ওয়েজীন বলেন, রাসুলের ভালবাসা থাকলে নামাজের দরকার নেই। অথচ ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে একটি নামাজ। নামাজ না থাকলে মুসলমানিত্ব থাকবে না।



আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত কারা আসলে, আগের দিন হাটহাজারীতে আমাদের আল্লামা আহমাদ শফী বলেছেন, আমরাই আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাত। কারণ, সুন্নাহ-এর অর্থ হল, তরিকতুন নাবী স.। জামায়াহ বলা হয়, জামায়াতুল মসলিমিন আল মুজতামিয়িন,আলা কউলিন ওয়াহিদিন ফি উসূলিল মাসায়িলিল শারিয়াতিল ইসলামিয়া। অর্থাৎ যে কথার ওপর মুসলমানরা একমত হয়েছে, সাহাবিরা একমত হয়েছে।



আহলুল সুন্নাহ এর বিপরিত হল, আহলুল দাল্লা। অর্থাত বাতেল দল। তারা হল, শিয়া, রাফেরি, খারেজি, কাদিয়ানি, মোতাজেলা,



তিনি বলেন, আমি যেদিন সংসদে রাশেদ খান মেননের বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েছিলাম সেই কাদিয়ানিদের অমুসলিম বলেছি। তিনি বলেন, আমার আব্বা আজ থেকে সত্তুর বছর আগে কাদিয়ানিদের বিরুদ্ধে কিতাব লিখেছেন। উনার অন্যান্য সব কিতাব ছাপানো হলেও এটা এখননো ছাপানো হয়নি। আমরা এখন এটা সাপাতে যাচ্ছি।


নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/