• মঙ্গলবার, ০২ মার্চ ২০২১, ১০:০৫ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার! বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারাদেশে যুবলীগের বিক্ষোভ দেশজুড়ে দৃষ্টিনন্দন ইসলামি ভাস্কর্য রামগঞ্জে দল্টা বাঙ্গালী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন

ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেনকে লেখা মাসুদা ভাট্টির খোলাচিঠিঃ

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৮

 

জনাব ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন,
গত ১৬ই অক্টোবর ২০১৮ রাত সাড়ে এগারটায় একাত্তর টেলিভিশনের জনপ্রিয় টক শো একাত্তর জার্নালে মিথিলা ফারজানার উপস্থাপনায় আমি এবং সাখাওয়াত হোসেন সায়ন্ত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলাম। সেখানে আপনার যোগ দেওয়ার কথা থাকলেও শেষাবধি আপনি আপনার বাসভবন থেকে ভিডিও সংযোগে অতিথি হিসেবে যুক্ত হন। টক শো‘র চলমান আলোচনার প্রেক্ষিতে আমি আপনাকে প্রশ্ন করে জানতে চেয়েছিলাম যে, “সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, যাতে আপনি ইসলামী ছাত্রশিবিরের একটি অনুষ্ঠানে গিয়ে একাত্মতা ঘোষণা করে বক্তব্য রাখছেন। অনেকেই এ কারণে মন্তব্য করেছেন যে, আপনি জামায়াতের প্রতিনিধি হিসেবে ঐক্যফ্রন্টে উপস্থিত থাকছেন… এটা কি সত্যি?”

অথচ এই প্রশ্নের কোনো জবাব না দিয়ে আপনি আমাকে `চরিত্রহীন’ বলে ব্যক্তি আক্রমণ করেছেন এবং আমার সম্মানহানির চেষ্টা করেছেন। যার মাধ্যমে আপনি আমার ব্যক্তি-মরযাদা নষ্ট করার চেষ্টা করেছেন। আপনি আমাকে ‘শিক্ষিতা ও ভদ্রমহিলা্’র মতো ‘অন্য’ প্রশ্ন করতে নির্দেশ দিয়েছেন। অর্থাৎ কোনো (ভদ্র) মহিলার এখতিয়ার নেই এরকম কোনো প্রশ্ন করার। আপনি ধমক দিয়ে আঙুল উঁচু করে উচ্চস্বরে চোখ রাঙিয়ে আমাকে থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন।

উপস্থাপক মিথিলা ফারজানা সঙ্গে সঙ্গে তার প্রতিবাদ করে আপনাকে সতর্ক করেছেন যে, একজন অতিথি আরেকজন অতিথিকে ব্যক্তি আক্রমণ তার অনুষ্ঠানের নীতি-বহির্ভূত এবং একেবারেই বেমানান। আমি যদিও তীব্রভাবে মনোক্ষুণ্ন হয়েছিলাম তবুও আমার দীর্ঘ সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতা এবং জীবনের নানা চড়াই-উৎরাই অতিক্রমণের চর্চার কারণে আমার প্রফেশনাল কাজে আপনার বক্তব্যের কোনো প্রভাব পড়তে দেইনি।সে কারণে আমি আমার প্রশ্নে অটল ছিলাম এবং মানসিক ভাবে কোনো দুর্বলতা আমি প্রকাশ হতে দেইনি কিংবা আপনাকেও পাল্টা আক্রমণ করিনি।আপনি চেষ্টা করেছেন আমার (মহিলার) ওপর কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার কিন্তু তাতে আপনি ব্যর্থ হয়েছেন।

আমার দীর্ঘ কর্মজীবনের অভিজ্ঞতা দিয়েই বুঝেছি যে, যুক্তিহীন মানুষই সাধারণতঃ ব্যক্তিগত আক্রমণ করে এবং একজন নারীর ক্ষেত্রে বিষয়টি সব সময়ই তার চরিত্রকে নির্দেশ করেই এই আক্রমণ করা হয়। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, আপনিও তার ব্যক্তিক্রম নন। একাত্তর টক শো’র উপস্থাপক মিথিলা ফারজানা আপনাকে বলেওছেন যে, আপনি ব্যক্তিগত আক্রমণ করছেন এবং এটা তিনি মেনে নেবেন না। কিন্তু আপনি অত্যন্ত রূঢ় হয়ে পুরো অনুষ্ঠানে কথা বললেন এবং বরাবরের মতোই সেটা ছিল আক্রমণাত্মক।

একজন প্রবীণ আইনজীবী হিসেবেই শুধু নয়, আপনি ১/১১-র শাসনামলে একটি গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালন করেছেন। কিন্তু সেই অনুষ্ঠানে আপনার আচরণ কি একজন প্রবীণ আইনজীবীর মতো ছিল? এই মুহূর্তে আপনি রাষ্ট্রের অন্যতম বৃহত্তম একটি রাজনৈতিক ফ্রন্ট-এর নেতৃস্থানীয় ভূমিকা পালন করছেন, যারা একটি সুন্দর ও সমতাভিত্তিক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের দাবী নিয়ে আন্দোলন করতে চাইছে। কিন্তু একটি টেলিভিশন চ্যানেলে লাইভ অনুষ্ঠানে যে একজন সাংবাদিককে ‘চরিত্রহীন’ বলে গাল দেওয়া যায় না সেই বোধ যেমন সকলের মাঝে তৈরি হওয়া প্রয়োজন তেমনই ভবিষ্যতের বাংলাদেশে যাতে এরকম কোনো কাজ কেউ না করে সেটাও নিশ্চিত করা সকল সচেতন নাগরিকের কর্তব্য।

এই মুহূর্তে বিষয়টি আর আমার ব্যক্তিগত ক্ষোভের ব্যাপার নেই। কারণ, আমি মনে করেছি আমাকে বা যে কোনো নারীকেই এরকম আক্রমণের শিকার হয়েই এগুতে হবে। বিষয়টি এখন দেশের গণমাধ্যমকর্মীসহ সকল পেশাজীবী নারী ও সচেতন নাগরিকের ওপর আঘাত হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই আঘাতকারী যখন একজন প্রবীণ আইনজীবী হয় তখন এটি আর আঘাত না থেকে হয়ে ওঠে চরম অপমানকর, অবমাননাকর ও আইনের লংঘনও।

গতকাল ১৭ তারিখ, বুধবার সন্ধ্যায় যখন আপনি আমাকে একটি অপরিচিত নাম্বার থেকে ফোন করে ক্ষমা চাইলেন তখনই আপনাকে আমি একথা বলেছি যে, অন্যায় কাজটি আপনি করেছেন একটি জনপ্রিয় টেলিভিশন টকশো-তে, যার স্বাক্ষী অনুষ্ঠানটির লক্ষ লক্ষ দর্শক। তাদের অগোচরে আপনি একটি ফোন করে ক্ষমা চাইলেন আমি ব্যক্তিগত ভাবে আপনাকে ক্ষমা করলেও যে অগণিত নারীকে আপনি অপমান করেছেন তাদের ক্ষোভ কোনো ভাবেই তাতে প্রশমিত হয় না। যেহেতু বিষয়টি ঘটেছে জনসম্মুখে সেহেতু আপনাকে আপনার বক্তব্য প্রত্যাহারপূর্বক অপরাধ স্বীকার করে সকল পক্ষের কাছেই প্রকাশ্যে মার্জনা চাওয়াটা কাম্য।

আশা করি, আপনি আমার ও আমার মতো অসংখ্য নারীর সম্মানহানির ক্ষত-এর জায়গাটি উপলব্ধি করবেন এবং প্রকাশ্যে সকলের কাছে মার্জনা প্রার্থণা করবেন।

বিনীতঃ
মাসুদা ভাট্টি
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, দৈনিক আমাদের নতুন সময়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/