• মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:২৩ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
সালাউদ্দিন কে সরাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়! জনতার রাজনীতির এক যোদ্ধার নাম সম্রাট সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা জুয়েলকে যুক্তরাষ্ট্রস্থ কোম্পানীগঞ্জবাসীর সংবর্ধনা! ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ড একটি জাতিগোষ্ঠী ও জাতিসত্তাকে গণহত্যার সামিল রামগঞ্জে ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালিত মুজিববর্ষ উপলক্ষে নোয়াখালীতে ছাত্রলীগের উদ্যোগ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ২১ শে আগস্ট ও বিএনপির ঐতিহাসিক বিচারহীনতার চরিত্র কোম্পানীগঞ্জসহ আরও ১০টি অর্থনৈতিক অঞ্চলের স্থান চূড়ান্ত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা: কী ঘটেছিল সেই দিন বঙ্গবন্ধু বিশ্বের মুক্তিকামী সকল মানুষের রাজনৈতিক আদর্শ

জম্মু-কাশ্মীরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে আমাদের আটকানো হতো না, বললেন রাহুল গান্ধি

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৯

মারুফ : জম্মু-কাশ্মীরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয় বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের নেতা রাহুল গান্ধী। বিরোধী প্রতিনিধিদলকে শ্রীনগরে ঢুকতে না দেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এই মন্তব্য করলেন।

ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, শনিবার সাবেক কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীসহ বিরোধী নেতাদের শ্রীনগর থেকেই ফেরত পাঠিয়েছে জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন। দিল্লিতে ফিরেই জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসনের প্রতি ক্ষোভ ঝাড়েন সাবেক কংগ্রেস নেতা রাহুল।

তিনি বলেন, কয়েকদিন আগে জম্মু-কাশ্মীরের রাজ্যপাল আমাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। তার আমন্ত্রণ আমি গ্রহণ করি। রাজ্যপাল বলেছিলেন, সেখানকার সব কিছু স্বাভাবিক এবং রাজ্য সফরের জন্য আমাকে বিমান পাঠাবেন। তাকে বলেছিলাম, আমার জন্য আপনাকে বিমান পাঠাতে হবে না। তবে আমি আপনার আমন্ত্রণ গ্রহণ করছি এবং জম্মু-কাশ্মীর যাবো।

রাহুল গান্ধী আরও বলেন, সেখানকার বাসিন্দাদের অবস্থা দেখে প্রয়োজনে সহযোগিতা করার উদ্দেশে আমরা সেখানে যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত বিমানবন্দরের বাইরে আমাদের যেতে দেয়া হলো না। এ থেকেই পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যায় সেখানকার পরিস্থিতি সম্পর্কে।

প্রসঙ্গত, শনিবার দুপুর ১২টার দিকে ভিস্তারার বিমানে দিল্লি থেকে শ্রীনগর যান তারা। শ্রীনগর বিমানবন্দরে নামতেই বাধার মুখে পড়েন নেতারা। বিমানবন্দরে উপস্থিত থাকা প্রশাসনের কর্মকর্তারা বিরোধী নেতাদের আর এগোতে দেননি। এসময় বাধা দেওয়ার পাশাপাশি তাদের ফিরে যেতে অনুরোধ করা হয়।

শুক্রবার রাতে রাহুল গান্ধীসহ বিরোধী দলের নেতাদের কাশ্মীর যাওয়ার কথা প্রকাশ্যে আসতেই জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন তাদের আপত্তির কথা জানিয়ে দেয়। বিবৃতি জারি করে বলা হয়, সীমান্তের ওপারের সন্ত্রাস, জঙ্গি ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হামলার আতঙ্ক থেকে জম্মু-কাশ্মীরের মানুষকে রক্ষা করার চেষ্টা করছে সরকার। দুষ্কৃতকারী মোকাবিলায় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এই সময় প্রবীণ রাজনৈতিক নেতাদের এমন কিছু করা উচিত নয় যাতে শান্তি বিঘ্নিত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/