• সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:২৬ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
সালাউদ্দিন কে সরাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়! জনতার রাজনীতির এক যোদ্ধার নাম সম্রাট সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা জুয়েলকে যুক্তরাষ্ট্রস্থ কোম্পানীগঞ্জবাসীর সংবর্ধনা! ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ড একটি জাতিগোষ্ঠী ও জাতিসত্তাকে গণহত্যার সামিল রামগঞ্জে ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালিত মুজিববর্ষ উপলক্ষে নোয়াখালীতে ছাত্রলীগের উদ্যোগ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ২১ শে আগস্ট ও বিএনপির ঐতিহাসিক বিচারহীনতার চরিত্র কোম্পানীগঞ্জসহ আরও ১০টি অর্থনৈতিক অঞ্চলের স্থান চূড়ান্ত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা: কী ঘটেছিল সেই দিন বঙ্গবন্ধু বিশ্বের মুক্তিকামী সকল মানুষের রাজনৈতিক আদর্শ

সিলেটে রাজু হত্যা! পরিকল্পিত খুনে অংশ নেয় ছাত্রদলের ২৬ নেতাকর্মী

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৯ মে, ২০১৯

সিলেট প্রতিনিধি পরিকল্পিত খুনে অংশ নেয় ছাত্রদলের ২৬ নেতাকর্মী
সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর বিজয় মিছিল শেষে ছাত্রদল নেতা ফয়জুল হক রাজুকে পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়। গত বছরের ১১ আগস্ট রাতে মেয়র আরিফের বাসার সামনে চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডের নির্দেশদাতা ছিলেন সাবেক ছাত্রদল নেতা আব্দুর রকিব চৌধুরী। এ হত্যাকাণ্ডে ছাত্রদলের ২৬ নেতাকর্মী জড়িত ছিল; তদন্ত শেষে তাদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছে পুলিশ। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার এসআই অনুপ কুমার চৌধুরী জানিয়েছেন, মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রকিবের নির্দেশে হত্যাকাণ্ডে অংশ নেওয়া জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দিনারকেও আসামি করা হয়েছে।

আগামী ১০ জুন আদালতে অভিযোগপত্রের ওপর শুনানি শেষে তা গ্রহণ করার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন নিহতের চাচা ও মামলার বাদী দবির আলী। জেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক দবির আলী বাদী হয়ে রকিবকে প্রধান আসামি করে ২৩ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরও ১০-১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন। তিনি জানান, রাজুকে হত্যার পর থেকে প্রধান আসামি রকিব পলাতক রয়েছে। মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ-প্রচার সম্পাদক ফয়জুল হক রাজু মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার শাহারপুর গ্রামের ফজর আলীর ছেলে। তিনি চাচা দবির আলীর বাসায় থেকে পড়াশোনা করতেন। রাজু হত্যার নয় মাস পর গত ১২ মে এসআই অনুপ কুমার চৌধুরী আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

আসামিরা হলো- আব্দুর রকিব চৌধুরী, দেলোয়ার হোসেন দিনার, এনামুল হক, একরামুল হক, মোস্তাফিজুর রহমান, শেখ নয়ন মিয়া, সৈয়দ আমিরুল হক সলিড, ফরহাদ আহমদ, সাদ্দাম হোসেন, মুহিবুর রহমান খান রাসেল, রাসেল আহমদ ওরফে কালা রাসেল ওরফে কানা রাসেল, আরাফাত এলাহী ওরফে বাবু, মোফাজ্জল চৌধুরী মুর্শেদ, আলফু মিয়া, শহীদুল হক সুফিয়ান, নজরুল ওরফে জুনিয়র নজরুল, ফাহিম আহমদ তোহা, আফজল ওরফে আবজল আহমদ চৌধুরী, সাহেদ আহমদ চৌধুরী, রুবেল মিয়া, মামুন আহমদ, জুমেল আহমদ চৌধুরী, মুহিত ওরফে মুহিব, মুর্শেদ আলম ওরফে রাসেল আহমদ, জাবেদ আহমদ ওরফে ছেচড়া জাবেদ ও জামাল মিয়া ওরফে জালাল। তারা সবাই ছাত্রদলের নেতাকর্মী বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে।

অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়, রাজু ছাত্রদল নেতা রকিবের ঘনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে নগরীর উপশহর কেন্দ্রিক ছাত্রদলের গ্রুপে সক্রিয় ছিলেন। ২০১৮ সালের ১৩ জুন সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের কমিটিতে প্রত্যাশিত পদ-পদবি না পেয়ে রাজু নিষ্ফ্ক্রিয় হয়ে রকিব গ্রুপ থেকে সরে যান। এর পর জুলাইয়ে সিটি নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর প্রচারে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে তার আস্থাভাজন হয়ে ওঠেন। এতে আগে থেকে আরিফের আস্থাভাজন রকিব আরও ক্ষুব্ধ হয়ে রাজুকে হত্যার পরিকল্পনা করে। মেয়র নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল ঘোষণার পর বিজয় মিছিল শেষে ফেরার পথে রকিবের নির্দেশে মোটরসাইকেল আরোহী রাজুকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ সময় রাজুর সঙ্গে থাকা ছাত্রদলের সালাউদ্দিন লিটন ও জাকির হোসেন আহত হয়। তাদের মধ্যে জাকির গুলিবিদ্ধ হন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/