• বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ১২:০৫ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার! বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারাদেশে যুবলীগের বিক্ষোভ দেশজুড়ে দৃষ্টিনন্দন ইসলামি ভাস্কর্য রামগঞ্জে দল্টা বাঙ্গালী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন

মূসা বিন শমশেরকে হত্যায় একাট্টা মোসাদ ও আইএসআই, গোপন চক্রান্ত ফাঁস

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৭ এপ্রিল, ২০১৯

বিশ্বের ভয়ংকর গোয়েন্দা সংস্থা ‘মোসাদ’ এর একের পর এক গোপন পরিকল্পনা ভন্ডুল করার দায়ে এবার মোশাদের পক্ষ থেকে টার্গেট করা হয়েছে বাংলাদেশের জনশক্তি রফতানি খাতের জনক ও বিশ্বের অন্যতম অস্ত্র ব্যবসায়ী ড. মূসা বিন শমশেরকে। সম্প্রতি এই ধনকুবেরকে হত্যার একটি গোপন পরিকল্পনা তারা করে। যা পরবর্তীতে ফাঁস হয়ে যায়। ড. মূসা বিন শমশেরের ঘনিষ্ট একটি সূত্র এ তথ্য জানায়।

ওই সূত্র মতে, ৮০’র দশকে ইসরাইল সরকার ভয়ঙ্কর ও মারাত্মক মরণাস্ত্র মিসাইল নিক্ষেপ করে মুসলমানদের পবিত্রতম স্থান মক্কা, মদিনা ও জেদ্দা ধ্বংসেরও পরিকল্পনা করেছিলো। আরবের আরেক অস্ত্র ব্যবসায়ী আদনান খাসেগীর সাথে সেই পরিকল্পনা নস্যাতে কাজ করেন ড. মূসা।

এছাড়া বেশ কয়েকবার ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদকে ভাড়া করে পাকিস্তানী গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা, তার পরিবারের সদস্য ও আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতাদের হত্যার পরিকল্পনা করে। ড. মূসা বিন শমশের একাধিকবার এসকল পরিকল্পনা সফল ভাবে ভন্ডুল করে দেন বলে খবর রয়েছে মোশাদের কাছে।

এসব কারণেই ড. মূসা বিন শমশেরকে ইসরাইলী গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদ ও পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই মিলে হত্যার পরিকল্পনা করেছিলো বলে দাবি সূত্রটির। সম্প্রতি ফাঁস হওয়া মোসাদের একটি গোপনবার্তায় এমনই তথ্য মিলেছে বলে সূত্রটি জানায়।

জানা গেছে, বিশ্বের শক্তিশালী ও ধুরন্ধর গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের পরিচালক ইয়োশি কোহেন গত বছরের ৭ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান লে. জেনারেল নাভিদ মুক্তারকে অত্যন্ত গোপনীয় একটি চিঠি দেন। ইয়োশি কোহেনের এই চিঠিতে বাংলাদেশের এই ধনকুবের ও আন্তর্জাতিক অস্ত্র ব্যবসায়ী ড. মূসা বিন শমশেরকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে ফেলার নির্দেশনা ছিলো। অবশ্য নিরপেক্ষ সূত্র হতে এই চিঠির সত্যতা নিশ্চিত করা না গেলেও চিঠিটি বিশেষ মারফত তাদের হস্তগত হয় বলে ড. মূসার ঘনিষ্ট ওই সূত্র নিশ্চিত করে।

অত্যন্ত গোপনীয় অভিধায় চিহ্নিত সেই চিঠিতে আইএসআই প্রধানকে ইয়োশি কোহেন ডিয়ার চীফ বলে উল্লেখ করেন। এরপর তাদের গোপন পরিকল্পনা বাস্তবায়নে মোতায়নকৃত ভয়ঙ্কর অস্ত্র সম্বলিত একটি জাহাজ সোমালিয়ান দস্যুদের হাতে ডুবিয়ে দেয়ার তথ্য উল্লেখ করা হয়।

সূত্র মতে ওই জাহাজটিতে এমনসব অস্ত্র বহন করা হচ্ছিলো যা দিয়ে দুরনিয়ন্ত্রিত রিমোর্ট দিয়ে হাজার হাজার মানুষকে হত্যা করে দেশে ম্যাসাকার সৃষ্টির পরিকল্পনা ছিলো।

এই জাহাজটি ডুবিয়ে দেয়ার জন্য তারা মূসা বিন শমশেরকে অভিযুক্ত করে। আর এই প্রতিশোধ নিতেই তাকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দিতে হবে বলে উল্লেখ করা হয় গোপন ওই চিঠিতে। দ্রুতই এই মিশন শেষ করা জরুরী বলেও তাতে উল্লেখ করা হয়।

অবশ্য এব্যাপারে ড. মূসা বিন শমশের আনুষ্ঠানিকভাবে কোন প্রতিক্রিয়া জানাননি এখন পর্যন্ত। তবে তার নিরাপত্তায় নিয়োজিত উপদেষ্টারা বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন। পরিস্থিতি সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে বলে সূত্রটি জানায়।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশী এই ধনকুবের দীর্ঘদিনযাবত আন্তর্জাতিক মিডিয়ার শিরোনাম হয়ে আসছেন। জনশক্তি রফতানির পাশাপাশি অস্ত্র ব্যবসার সুবাদে মুসলিম বিশ্বসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়ক ও গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সাথে তার ঘনিষ্ট সম্পর্ক রয়েছে। অস্ত্র ব্যবসার প্রায় ১২ বিলিয়ন ডলার সুইস ব্যাংকে আটকে যাওয়ার পর তিনি দেশবিদেশের মিডিয়ায় আবারো আলোচনায় আসেন। নিজ দেশে তিনি নিজস্ব বিশেষ নিরাপত্তা বাহিনী নিয়ে চলাফেরা করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/