• মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০১:০৫ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
সালাউদ্দিন কে সরাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়! জনতার রাজনীতির এক যোদ্ধার নাম সম্রাট সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা জুয়েলকে যুক্তরাষ্ট্রস্থ কোম্পানীগঞ্জবাসীর সংবর্ধনা! ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ড একটি জাতিগোষ্ঠী ও জাতিসত্তাকে গণহত্যার সামিল রামগঞ্জে ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালিত মুজিববর্ষ উপলক্ষে নোয়াখালীতে ছাত্রলীগের উদ্যোগ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ২১ শে আগস্ট ও বিএনপির ঐতিহাসিক বিচারহীনতার চরিত্র কোম্পানীগঞ্জসহ আরও ১০টি অর্থনৈতিক অঞ্চলের স্থান চূড়ান্ত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা: কী ঘটেছিল সেই দিন বঙ্গবন্ধু বিশ্বের মুক্তিকামী সকল মানুষের রাজনৈতিক আদর্শ

নুসরাতের হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে কোম্পানীগন্জে কহিনূর-হুদা ফাউন্ডেশনের মানববন্ধন।

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৩ এপ্রিল, ২০১৯


নুর উদ্দিন মুরাদ:
ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় অভিযুক্ত অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার ফাঁসির দাবিতে কোম্পানীগঞ্জে মানববন্ধন করেছে কহিনূর হুদা ফাউন্ডেশন।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) সকাল ১০টায় উপজেলার হাজারীহাট বাজারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে উপস্থিত ছিলেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা শিক্ষক সমিতি সভাপতি সুলতান আহমেদ চৌধুরী বাবুল, আছিয়া ক্যারমান বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল মান্নান,হাজারীহাট আলিম মাদ্রাসা অধ্যক্ষ মোহাম্মদ উল্যাহ,চরহাজারী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি হুমায়ুন কবির শাহজাদা,হাজারীহাট বাজার কমিটি সভাপতি এনামুল হক হকসাব,ছাত্রলীগ নেতা আরিফুর রহমান আরিফ,বোরহান উদ্দিন মিঠু প্রমুখ।

এসময় বিভিন্ন মাদ্রাসা ও স্কুল, কলেজের শিক্ষক- শিক্ষার্থীরা স্বতস্পুর্ত ভাবে অংশগ্রহন করেন

মানববন্ধনে কহিনুর হুদা ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ও সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি নুরুল করিম জুয়েল বলেন, নুসরাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তি দিতে হবে। এ হত্যাকাণ্ডের মূলহোতা মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলাকে দৃষ্টান্তমূলক বিচারের মাধ্যমে ফাঁসি দিতে হবে।

বক্তারা আরো বলেন, বাংলাদেশের নারীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, বিভিন্ন অফিস আদালতে যৌন নির্যাতনের স্বীকার হতে হয়। তিন সন্তানের জননী এমনকি শিশুদেরও যৌন নির্যাতন করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি, যৌন নির্যাতনের জন্য কঠিন আইন করা হোক। যেন নারীদের নির্যাতন করতে ভয় পায়।

বক্তারা বলেন, নুসরাত আমাদের প্রতিবাদ করতে শিখিয়েছে। সে অন্যায়ের কাছে মাথা নতো করেনি। মৃত্যুর আগেও সে দোষীদের শাস্তি চেয়েছে। তাই আমাদের সবাইকে যার যার স্থান থেকে প্রতিবাদ করতে হবে, যেন আর কোনো নারী নির্যাতনকারী রেহাই না পায়।

গত ৬ এপ্রিল সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় আলিম পরীক্ষার কেন্দ্রে মাদ্রাসার ছাদে ডেকে নিয়ে নুসরাতের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে পালিয়ে যায় মুখোশধারীরা। পরিবারের অভিযোগ, ২৭ মার্চ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা তার কক্ষে ডেকে নিয়ে নুসরাতের শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন। এ বিষয়ে স্বজনদের দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের চাপ দিয়েও প্রত্যাখ্যাত হওয়ায় নুসরাতকে আগুনে পোড়ানো হয়। আগুনে ঝলসে যাওয়া নুসরাত ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১০ এপ্রিল রাতে মারা যায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/