• শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:১৫ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
সালাউদ্দিন কে সরাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়! জনতার রাজনীতির এক যোদ্ধার নাম সম্রাট সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা জুয়েলকে যুক্তরাষ্ট্রস্থ কোম্পানীগঞ্জবাসীর সংবর্ধনা! ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ড একটি জাতিগোষ্ঠী ও জাতিসত্তাকে গণহত্যার সামিল রামগঞ্জে ছাত্রলীগের উদ্যোগে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি পালিত মুজিববর্ষ উপলক্ষে নোয়াখালীতে ছাত্রলীগের উদ্যোগ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ২১ শে আগস্ট ও বিএনপির ঐতিহাসিক বিচারহীনতার চরিত্র কোম্পানীগঞ্জসহ আরও ১০টি অর্থনৈতিক অঞ্চলের স্থান চূড়ান্ত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা: কী ঘটেছিল সেই দিন বঙ্গবন্ধু বিশ্বের মুক্তিকামী সকল মানুষের রাজনৈতিক আদর্শ

রামগঞ্জে পাউবোর খালে পানি না থাকায় দশ হাজার মেট্রিকটন ধান উৎপাদন ব্যাহত

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯

 

রামগঞ্জ(লক্ষ্মীপু) প্রতিনিধি ঃ
বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড পাউবোর চাঁদপুর সেচ প্রকল্পের আওতাধীন খালের রামগঞ্জ অংশে পানি না থাকায় দশ হাজার মেট্রিকটন ধান উৎপাদন ব্যাহত হবে বলে আসংখ্যা করছেন কৃষিবিদরা। বোরোধান বোপনের মাসাদিক সময় অতিক্রম করলে ও পাউবোর খালে পানি না থাকায় মৌসমের শুরুতেই দুশ্চিন্তার মধ্যে পড়েন কৃষকরা।
সরজমিনে উপজেলার চন্ডীপুর, ইছাপুর, নয়নপর, নারায়নপুর, শ্রীরামপুর সহ কয়েকটি এলাকাঘুরে দেখা যায়। আবাদি জমিগুলো পানির অভাবে মাটি ফেটে চৌচির হয়ে আছে। বোরো ধানগাছ গুলি লালছে আকার ধারন করে প্রায় নষ্ট হয়ে গেছে। এতে দিশেহারা হয়ে চাষীরা উপজেলা কৃষি অফিসসহ বিভিন্ন দপ্তরে পানি সংকট সমাধানের জন্য লিখিত আবেদন করলেও কোনো ফল মিলেনি।
এব্যপারে চন্ডীপুরের কৃষক তাকদীর হোসেন বলেন, আমি এবছর এনজিও সমিতি থেকে লোননিয়ে আমার ১২০ শতাংশ জমিতে বোরোধান রোপন করি। কিন্তু রোপনের পরেই খালে পানি সরবরাহ না থাকায় সব ধানগাছ প্রায় নষ্ট হয়েগেছে।
ইছাপুরের কৃষক মোঃ ফারুক হোসেন বলেন, ১৩০ শতাংশ জমিতে ধারদেনা করে বোরোধানের চাষ করেছি, কিন্তু পানির অভাবে ধানগাছগুলো নষ্ট হয়েগেছে। এখন কীভাবে দেনা পরিশোধ করবো সে চিন্তায় আছি।
কৃষক সেরাজুল হক, কাশেম, বাবুল, বলেন- অভাব অনটনের মধ্যেই ধারদেনা করে বোরো আবাদ করেছি, কিন্তু খালে পানি না থাকায় ধানগাছগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
উপজেলা কৃষলীগের সভাপতি আবুল কাশেম মাষ্টার জানান, স্হানীয় কৃষকদের বেহাল দশা দেখে কয়েকজন কৃষকদের সাথে নিয়ে পাউবোর খালে পানি সবরাহ কল্পে প্রয়োজনীয় ব্যবস্তা নিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত আবেদন করেছি।
এব্যপারে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তানবীর আহমেদ সরকার বলেন, এবছর এপ্রকল্পের অধিনে ২হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ও ১২শ হেক্টর জমিতে রবি শষ্য আবাদ করেছে স্হানীয় কৃষকরা। পানি সংকট সমাধানের জন্য চাঁদপুর সেচ প্রকল্পের দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করেছি।
এব্যপারে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার মোহাম্মদ রিজাউল করিম বলেন, বিষয়টি আমি জেলা প্রশাসককে জানিয়েছি। লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে বিষয়টির সমাধানের চেষ্টা করছে।
এব্যপারে জানতে চাইলে চাঁদপুর সেচ প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী রুহুল আমিন বলেন, আমরা এখন ১৮ ঘণ্টার স্হলে ২২ ঘণ্টার সেচ পাম্প গুলি চালু রাখি এর পরেও পাউবোর খালের রামগঞ্জ অংশে কেন পানির সংকট তা সরজমিনে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্তা নিবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/