• বুধবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:২৪ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার! বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারাদেশে যুবলীগের বিক্ষোভ দেশজুড়ে দৃষ্টিনন্দন ইসলামি ভাস্কর্য রামগঞ্জে দল্টা বাঙ্গালী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন

গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার!

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২০

নুর উদ্দিন মুরাদ:
নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের চরহাজারী ইউনিয়নের বাসিন্দা মমতাজ বেগম।তিনি ভিক্ষা করেই সংসার চালান। মমতাজ বেগম নদীর কূলে একটি ভাঙ্গা ঘরে দীর্ঘদিন দিন কাটাচ্ছেন।শীত,গ্রীষ্মকাল কোনো রকম গেলেও বর্ষায় ঘরে ঘুমানো যেতো না!তার প্রথম স্বামী মারা গেছেন দু সন্তান রেখে, পরের স্বামী নেন না খৌঁজ। নদীর কূলে থাকা মমতাজের বড় মেয়ে বিয়ের উপযুক্ত।চোখে সহ শরীরে বিভিন্ন রোগ দেখা দিয়েছে, নেই ঔষধের পয়সা।যারা দু মুঠো খেতেই মুশকিল, তাদের আবার চিকিৎসা!

ঠিক সেসময়ে খবর পেয়ে টিম হাসিমুখ ডাক্তার দেখিয়ে ঔষধ এবং চোখের চশমা কিনে দেন মমতাজকে।কথা দিয়েছিলেন, একটা থাকার ঘরও করে দেবেন।গত এক মাস ঘর তৈরির জন্য যাবতীয় আসবাবপত্র সংগ্রহ করেন টিম হাসিমুখের স্বেচ্ছাসেবীরা।ঘর তৈরির জন্য মাটি ভরাট আর গাছ ক্রয় করে কাঠ বানানো থেকে যাবতীয় কাজ করেছেন টিম হাসিমুখের সদস্যরা!

টিম হাসিমুখের সদস্য আজাদ খান জানান, আমরা কথা দিয়েছি মানে একটি দায়িত্ব নিয়েছি। সে দায়িত্ব থেকে আজ মমতাজ বেগমের ঘর সম্পূর্ন করে দিয়েছি। ঘর পেয়ে মমতাজ বেগম খুশি হয়েছেন আর তাতেই আমাদের গত এক মাসের ক্লান্তি দুর হয়ে গেছে।

স্থানীয় রফিকুল ইসলাম জাানান, বেশ কয়েক বছর ধরে দেখছি একদল তরুন কখনো অসহায় মানুষের জন্য চাল পৌছে দিচ্ছেন, কখনো অসহায় কোনো মেয়ের বিয়ের ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন।আবার কখনো অসুস্থ্য অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন সাধ্যমত।এছাড়াও বিপদগ্রস্ত মানুষকে রক্ত দিতে কখনো কখনো ছুটে যান এ শহর থেকে ঐ শহরে।অনেককেই দেখি একটুতেই হাঁপিয়ে উঠেন, ক্লান্ত হয়ে পড়েন তবে এ তরুণদের মাঝে সে ক্লান্তি দেখিনি।প্রায় দেখে থাকি অনেক গুলো পরিবার আছে যারা এতই অসহায় যে আদরের মেয়েটার বিয়ের সময় বরপক্ষের ২০ জন লোককে ভাত খাওয়াবেন সে ক্ষমতাও নেই!ঠিক, সেরকম বহু পরিবারের জন্যে হলুদের রাতে মোরগ,চাল, ডাল নিয়ে হাজির হয় টিম হাসিমুখ।

ঘর পেয়ে মমতাজ বেগম বলেন, আমি কল্পনাও করতে পারিনি একটি ঘর এতো সহজে পাবো।ভিক্ষা করে যা পাই কোনো রকম দু মুঠ খেতে চলে যায়। দুইটা মেয়ে বিয়ের উপযুক্ত দুশ্চিন্তায় ছিলাম।আল্লাহ এদের মঙ্গল করুক।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/