• সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০৪:০৫ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
গৃহহীন অসহায় মমতাজকে টিম হাসিমুখের ঘর উপহার! বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে ঢাকাসহ সারাদেশে যুবলীগের বিক্ষোভ দেশজুড়ে দৃষ্টিনন্দন ইসলামি ভাস্কর্য রামগঞ্জে দল্টা বাঙ্গালী ব্লাড ডোনার্স ক্লাবের উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং নকল আওয়ামী লীগের ভিড়ে হারিয়ে যাচ্ছে আসল আওয়ামীলী লীগ’ বসুরহাট পৌরসভার জনকল্যাণে নিবেদিতপ্রাণ আবদুল কাদের মির্জা ‘তুরস্কের আঙ্কারায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নির্মাণ করা হবে’ যুবলীগ সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার থানায় জিডি ভাস্কর্য বিরোধীতার আগে শিশু বলাৎকার বন্ধ করুন: ডা. জাফরুল্লাহ কোম্পানীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি হাসান ইমাম রাসেল’র জন্মদিন উদযাপন

সেনবাগে প্রতিবন্ধী মেয়েকে কবরস্থানে নিয়ে গণধর্ষণ-গ্রেফতার-২

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১১ জুন, ২০২০

নোয়াখালীর সেনবাগের ৫নং অর্জুনতলা ইউনিয়নের উত্তর মানিকপুর গ্রামে এক প্রতিবন্ধী মেয়েকে গণধর্ষণ করছে গ্রামের ১০ জন বখাটে যুবক।

জানাযায়, পাশের গ্রাম হাটিরপাড়ের মিজিবাড়ির মৃত আবুল কালামের মেয়ে নাসরিন আক্তার প্রতিবন্ধী মেয়েটি গত ৬ জুন, শনিবার সকাল ৯.৩০ এর সময় রাস্তা দিয়ে হেটে যাওয়ার সময় বখাটেরা তাকে জোর পূর্বক রাস্তার পাশের বারিক সরকারের কবরস্থানে নিয়ে যায়। পরব একে একে সবাই মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন এবং মোবাইলে ভিডিও ধারন করেন। ধর্ষণ শেষে নানান ধরনের হুমকি দিয়ে মেয়েটিকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন তারা।

উত্তর মানিকপুর হাজি বাড়ির আবু তাহের হাবিলদারের ছেলে ফারুকে নেতৃত্বে একই গ্রামের চৌকিদার বাড়ির ভুট্ট মিয়ার ছেলে সোহেল, বিত্তি বাড়ির গফুর মিয়ার ছেলে শাওন, চানমিয়া ভাট বাড়ির টোকন আলীর ছেলে আলী হোসেন, হাজী বাড়ির সৈয়দ আহাম্মেদের ছেলে খলিল, হাজী বাড়ির আবুল বাসারের ছেলে মাহফুজ, ভাট বাড়ির জলিলের ছেলে ফাহিম মিলে মেয়েটিকে ধর্ষণ করেন।

পরে মেয়েটি বাড়িয়ে গিয়ে নিজের মাকে বিষয়টি অবগত করলে মা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যকে বিষয়টি জানান। ইউনিয়ন পরিষদের ওই সদস্য বিষয়টি ৫নং অর্জুনতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল ওহাব বিএসসিকে অবগত করেন, এবং ওই ভুক্তভোগীর পরিবারের পক্ষ থেকে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নিকট লিখিত অভিযোগ করেন মেয়েটির মা।

এই বিষয়ে, ৫নং অর্জুনতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল ওহাব বিএসসি ডিজিটাল বাংলাদেশকে জানান, “গণধর্ষণের বিষয়টি সত্য, এই বিষয়ে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্ততি চলছে”।

এদিকে উক্ত ঘটনাকে টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেন উত্তর মানিপুরের বাসিন্দারা। তাদের অভিযোগ এতোবড় একটা ঘটনা অথচ এখনো থানায় মামলাও হয়নি বিষয়টি রহস্যজনক। দ্রুত এর বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা না নিলে এরকম অপরাধ পূণরায় হওয়ার আশংকা করছেন গ্রামের বাসিন্দারা।

ঘটনাটি ডিজিটাল বাংলাদেশের কতৃপক্ষের নজরে আনেন স্থানীয় কিছু বাসিন্দা। পরে ডিজিটাল বাংলাদেশ টিম ঘটনার বিষয়ে তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে এর সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে অবহিত করলে তারা এই বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করেন। পরে বিকেলে পুলিশের তিনটি টিম পৃথকভাবে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে প্রধান আসামী ফারুক সহ অন্যতম আসামী ফাহিমকে গ্রেফতার করেন।

সেনবাগ থানার ওসি আব্দুল বাতেন মৃধা সময় এক্সপ্রেস নিউজকে জানান, ” ঘটনা আমরা শুনতে পেয়েই সাথে সাথে উক্ত বিষয়ে তদন্ত শুরু করি পরে আমাদের তিনটি টিম আসামীদের গ্রেফতার করতে অভিযান পরিচালনা করেন। প্রধান আসামি সহ দুইজনকে গ্রেফতার করি আমরা বাকিদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে”।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

http://digitalbangladesh.news/